শুক্রবার, ৩০ জুলাই, ২০২১,  ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮,  Friday, July 30, 2021


দ্যা বাংলা টাইম

আপডেট : 1 month ago

Wed, Jun 16, 2021 12:11 PM

 

কোরবানিযোগ্য পশু ১ কোটি ১৯ লাখ

Card image cap

আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহায় দেশী গরু দিয়েই কোরবানির সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে সরকার।  এ বছর এক কোটি ১৯ লাখ ১৬ হাজার কোরবানিযোগ্য পশু রয়েছে, যা গত বছরের তুলনায় ১৯ হাজার বেশি।  দেশী পশুতে চাহিদা পূরণ হওয়ায় দেশের বাইরে থেকে গরু আনা বন্ধে কঠোর অবস্থানে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।

প্রাণিসম্পদ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের মতো এবারও গবাদিপশুর পর্যাপ্ত মজুত রয়েছে।  গত বছর হৃষ্টপুষ্টকরণের আওতায় কোরবানির জন্য ঢাকা সিটি করপোরেশনসহ সারাদেশে গবাদিপশুর সংখ্যা ছিল এক কোটি ১৮ লাখ ৯৭ হাজার ৫০০টি।  এ বছর এ কার্যক্রমের আওতায় মাঠপর্যায়ের তথ্য অনুযায়ী ৪৫ লাখ ৪৭ হাজার গরু-মহিষ, ৭৩ লাখ ৬৫ হাজার ছাগল-ভেড়া এবং অন্যান্য চা হাজার ৭৬৫টি পশুসহ মোট এক কোটি ১৯ লাখ ১৬ হাজার ৭৬৫টি কোরবানিযোগ্য গবাদিপশু রয়েছে।

 কোরবানির জন্য পর্যাপ্ত পশু আছে।  এ বছর কোরবানিযোগ্য এক কোটি ১৯ লাখ ১৬ হাজার ৭৬৫টি পশু রয়েছে।  গত বছরের তুলনায় এ বছর কোরবানিযোগ্য পশুর সংখ্যা বেশি 

চলতি বছর হৃষ্টপুষ্টকৃত গরু-মহিষের সংখ্যা ৩৮ লাখ ৫৮ হাজার ৮০০টি, হৃষ্টপুষ্টকৃত ছাগল-ভেড়া ২৩ লাখ ৭২ হাজার ৭৪৮টি এবং গৃহপালিত গরু-মহিষের সংখ্যা ৬৮ লাখ ৮৮ হাজার ২০০টি, গৃহপালিত ছাগল-ভেড়ার সংখ্যা ৪৯ লাখ ৯২ হাজার ২৫২টি।

ঢাকা বিভাগে ৯২ হাজার ৮২১ জন খামারির ছয় লাখ চার হাজার ৬৬৪টি, ময়মনসিংহ বিভাগে ৪০ হাজার ৯৬৩ জন খামারির এক লাখ ৬৩ হাজার ৯৪৩টি, খুলনা বিভাগে এক লাখ ৭ হাজার ২২৭ জন খামারির আট লাখ ৭৮ হাজার ২৪২টি, রাজশাহী বিভাগে এক লাখ ২৭ হাজার ২৬১ জন খামারির ১৪ লাখ ১০ হাজার ৮০৯টি, রংপুর বিভাগে দুই লাখ ২২ হাজার ৪১৮ জন খামারির ১৩ লাখ তিন হাজার ২৪১টি, সিলেট বিভাগে ১২ হাজার ৯৭২ জন খামারির এক লাখ ৩৮ হাজার ৭২৫টি, বরিশাল বিভাগে ২০ হাজার ৩৮৭ জন খামারির এক লাখ ৩৮ হাজার ৩৭৪টি, চট্টগ্রাম বিভাগে ৭৪ হাজার ৬৬ জন খামারির ১৫ লাখ ৯৮ হাজার ৩১৫টি হৃষ্টপুষ্ট গবাদিপশু রয়েছে।

গত বছর কোরবানির আগে দেশের বাইরে থেকে আর কোনো গরু আমদানি না করার বিষয়ে কঠোর অবস্থানের কথা জানিয়েছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।  এবারও পর্যাপ্ত দেশীয় গরু মজুত থাকায় বিদেশি গরু আনা পুরোপুরি নিরুৎসাহিত করছে সরকার।

বাইরে থেকে গরু আসা বন্ধে এবার সীমান্ত এলাকা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর নজরদারির মধ্যে থাকবে।  দেশের বাইরে থেকে গরু আনা বন্ধের জন্য পশু ও পশু বিক্রেতার নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ, কোরবানির পশুবাহী ট্রাক ছিনতাই প্রতিরোধ এবং সীমান্তবর্তী জেলায় গবাদিপশুর অবৈধ অনুপ্রবেশ বন্ধে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, জেলা প্রশাসন, জেলা প্রাণিসম্পদ অধিদফতর, বিজিবি এবং বাংলাদেশ পুলিশ বিভাগের যৌথ সহযোগিতা চাইবে মন্ত্রনালয়।

জানা গেছে, আসন্ন ঈদুল আজহায় ঢাকাসহ দেশের উল্লেখযোগ্য হাট-বাজারে পশুর স্বাস্থ্যসেবার লক্ষ্যে ভেটেরিনারি মেডিকেল টিম প্রস্তুত থাকবে।  গত বছর ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আওতায় ২৩টি অস্থায়ী ও ১টি স্থায়ী পশুহাটে পশুর প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার জন্য ২৫টি ভেটেরিনারি মেডিকেল টিম গঠন করে যথাযথভাবে দায়িত্ব পালনের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়।

ভেটেরিনারি মেডিকেল টিমের কার্যক্রম মনিটরিংয়ের জন্য কেন্দ্রীয় মনিটরিং টিম এবং বিশেষজ্ঞ মেডিকেল টিম গঠন করা হয়।  কোরবানির হাট ব্যবস্থাপনার জন্য চারটি মনিটরিং টিম ও কন্ট্রোল রুমের দায়িত্ব পালনের জন্য কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়।

পশুহাটে প্রাণিস্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় কর্মকর্তা-কর্মচারীর সমন্বয়ে রিজার্ভ টিম গঠন করা হয়।  এছাড়া সারাদেশে দুই হাজার ৪০০টি কোরবানির পশুর হাটে দায়িত্ব পালনের জন্য এক হাজার ২০০টি ভেটেরিনারি মেডিকেল টিম গঠন করে দায়িত্ব দেয়া হয়েছির।  এ বছরও সেভাবেই পশুর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের কর্মকর্তারা জানান, রাসায়নিক ব্যতীত সঠিক পদ্ধতি ব্যবহার করে গরু হৃষ্ট-পুষ্টকরণে খামারিদেরকে উৎসাহিত করার জন্য এবং এ কার্যক্রমে রাসায়নিক ব্যবহারের কুফল সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টির জন্য অধিদফতরের মাঠপর্যায়ে ইতিমধ্যে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

হৃষ্টপুষ্টকৃত গরুর সংখ্যাসহ খামারিদের তথ্য উপজেলা দফতরে সংরক্ষণ করা হচ্ছে এবং কাজটি চলমান আছে।  স্থানীয় প্রশাসন এবং অন্যান্য বিভাগের সহযোগিতার জন্য প্রাণিসম্পদ অধিদফতর থেকে বিভাগীয়, জেলা এবং উপজেলায় কর্মরত কর্মকর্তা, খামারিদের প্রশিক্ষণ এবং বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে গবাদিপশু হৃষ্টপুষ্টকরণের জন্য চিঠি পাঠানো হয়েছে।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে কোরবানির পশুর হাটে সুস্থ্য-সবল গবাদিপশু সরবরাহ ও বিক্রয় নিশ্চিত করার লক্ষ্যে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে শিগগিরই সভা করা হবে।  সেখানে কোরবানির পশুসহ সার্বিক বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে।  তবে যেহেতু দেশীয় পশু দিয়েই চাহিদা মেটানো সম্ভব, তাই বিদেশ থেকে কোনো পশু আনার ক্ষেত্রে কঠোর নিষেধাজ্ঞা থাকছে।  আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে এ বিষয়ে কঠোর দিক নির্দেশনা দেয়া হবে।

সার্বিক বিষয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘কোরবানির জন্য পর্যাপ্ত পশু আছে।  এ বছর কোরবানিযোগ্য এক কোটি ১৯ লাখ ১৬ হাজার ৭৬৫টি পশু রয়েছে।  গত বছরের তুলনায় এ বছর কোরবানিযোগ্য পশুর সংখ্যা বেশি।’

তিনি বলেন, ‘কোনভাবেই বাইরে থেকে গরু আনতে পারবে না।  যেখানে যেখানে ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন আমরা ব্যবস্থা নেবে।  কোরবানির পশু পরিবহনে ঝামেলা এড়াতে প্রয়োজনে ট্রেনে কোরবানির পশু আনা যাবে।  ট্রেনে আনতে কোনো সমস্যা হবে না।’