শনিবার, ২২ জানুয়ারী, ২০২২,  ৯ মাঘ ১৪২৮,  Saturday, January 22, 2022


দ্যা বাংলা টাইম

আপডেট : 1 week ago

Sun, Jan 9, 2022 8:32 AM

 

করোনার দাপটে বন্ধ হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়

Card image cap

করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় আবারো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়।  এরই মধ্যে জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।  অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ও পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে।  যেকোনো সময়ে আরো কিছু বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ হওয়ার ঘোষণা আসতে পারে।  তবে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) বলছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বন্ধ করার জন্য নিজস্ব প্রশাসনই সিদ্ধান্ত নেবে।  আর সরকারের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনা আসার পরেই আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেবে ইউজিসি। 

অন্যদিকে আজ রোববার রাতে এ বিষয়ে জরুরি বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।  সেখানেই জানানো হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হবে নাকি খোলা থাকবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দেশে করোনার প্রকোপ ইতোমধ্যে আবারো বাড়তে শুরু করেছে।  সংক্রমণ বৃদ্ধির ধারায় নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে দৈনিক শনাক্তের হার ৫ শতাংশ ছাড়িয়েছে।  গত কয়েক দিনে শনাক্ত রোগীর সংখ্যাও ক্রমে বাড়তে শুরু করেছে।  এই পরিস্থিতিতে সশরীরে ক্লাস বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।  গত বুধবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক প্রশাসনিক সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে ইউজিসি সদস্য (পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর হোসেন বলেন, করোনা সংক্রমণের কারণে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সশরীরে ক্লাস-ক্যাম্পাস বন্ধের সিদ্ধান্ত ইউজিসি থেকে দেয়া হবে না।  তবে এ সংক্রান্ত কোনো নির্দেশনা সরকারের কাছে এলে আমরা তা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্টদের জানিয়ে দেবো।  তাছাড়া সশরীরে ক্লাস-ক্যাম্পাস বন্ধের সিদ্ধান্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিজেরাই নেবে।  এর বাইরে সরকার যদি সামগ্রিকভাবে কোনো সিদ্ধান্ত নেয় তাহলে হয়তো সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে মানতে হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, কোনো জরুরি প্রয়োজনে ক্যাম্পাস বন্ধ করতে চাইলে সেক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট কিংবা একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।  সেক্ষেত্রে জরুরি সভা ডেকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়ে থাকে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের পর সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে।  ভিসি অধ্যাপক ড. মো: আখতারুজ্জামান গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন এখনই বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ করে দেয়ার মতো পরিস্থিতি হয়নি।  যেহেতু আমাদের হলগুলো খোলা রয়েছে, সেক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমাদের ক্লাস-পরীক্ষাগুলো চলমান থাকবে।  তবে পরিস্থিতিই বলে দেবে কখন কী করতে হবে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ বলেন, দেশব্যাপী করোনার প্রকোপ বিবেচনায় পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত সশরীরে ক্লাস বন্ধ থাকবে।  তবে চলমান পরীক্ষা ও ব্যবহারিক ক্লাসগুলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে অব্যাহত থাকবে।  প্রয়োজনে, পরীক্ষার হল বৃদ্ধি ও ব্যবহারিক পরীক্ষার ক্ষেত্রে গ্রুপ সংখ্যা বৃদ্ধি করা হবে।  তিনি আরো জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোতে বড় পরিসরে আইসোলেশান করার কথাও ভাবা হচ্ছে। আপাতত, প্রতি হলে কমপক্ষে চারজন শিক্ষার্থীর জন্য আইসোলেশানের ব্যবস্থা গ্রহণ করার নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।  বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিক্যাল সেন্টার থেকে রেফারেন্স নিয়ে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ১০০ টাকায় করোনা পরীক্ষা করা যাবে বলেও জানান তিনি।

করোনাকালীন পরিস্থিতি বিবেচনায় এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) প্রশাসন।  তবে আগামীতে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হলে তা জানানো হবে বলে জানিয়েছেন ভিসি অধ্যাপক ড. মো: ইমদাদুল হক।  তিনি বলেন, করোনাকালীন পরিস্থিতি বিবেচনায় এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।  প্রশাসন বসে (মিটিং করে) কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হলে তা পরবর্তীতে জানানো হবে।